• মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৩:১২ অপরাহ্ন
Channel Cox add

বাইশারী-গর্জনিয়ার একমাত্র সেতুবন্ধন ব্রিজটি নদীর সাথে বিলীনের পথে | ChannelCox.com

সংবাদদাতা
আপডেট : শনিবার, ২৭ জুন, ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক:

গর্জনিয়া ইউনিয়নের স্কুল কলেজ পড়ুয়া শত শত ছাত্রছাত্রী, বাইশারী বাজার মুখী হাজার হাজার জনসাধারণ ও ব্যবসায়ীদের যাতায়াতের জন্য এটিই একমাত্র ব্রিজ, যেটি এখন মানুষ ও যানবাহন চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে।

এ বছর বর্ষার শুরুতে গত কয়েকদিন আগে টানা বৃষ্টিপাতের ফলে বন্যাকবলিত হয়ে ধসে গেছে ব্রিজের একাংশ, কয়েকদিকে ফাটল ধরেছে যেকোন মুহুর্তে নদীর সাথে বিলীন হয়ে যেতে পারে বাইশারী-গর্জনিয়ার মানুষের চলাচলের একমাত্র ব্রিজটি।

গর্জনিয়া ইউনিয়নের নতুনবাজার, জুমছড়ী, মরিচ্চাচর, ঝুরাণীখোলা, এবং বড়বিলের মানুষের জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বাজার দূরে হওয়ায় এই প্রত্যন্ত এলাকার প্রতিটা মানুষ বাইশারী বাজার মুখী,

সরজমিন ঘুরে দেখা যায়, ব্রিজের দুই পাশেই ফাটল ধরেছে উত্তর পাশ নদীর দিকে হেলে পড়েছে, সাধারণ মানুষ ব্রিজের এমন করুণ অবস্থা দেখে চিন্তিত হয়ে পড়েছে যেকোন মুহুর্তে বাইশারী-গর্জনিয়ার প্রীতি বন্ধন পানির সাথে মিশে যেতে পারে।

বড়বিল এলাকার কয়েকজন ব্যক্তি জানায়, বাংলাদেশের প্রতিটা ইউনিয়নে উন্নায়ন হলেও আমরা সিট মহলবাসী আমাদের এই অবহেলিত এলাকার উন্নায়ন করবে কে? বাইশারীর সাবেক চেয়ারম্যান এর আন্তরিকতায় একটা ব্রিজ পেয়েছিলাম যদি মানবতার ফেরারি নামে পরিচিত বর্তমান বাইশারীর চেয়ারম্যান আলম কোম্পানি ব্রিজটির দিকে নজর না দিলে সেটাও নদীতে বিলীন হয়ে যাবে।

বিগত ২০-২৫ বছর আগে একমাত্র সম্প্রীতির সীমানা ব্রিজটি নির্মিত হয়েছিল বাইশারী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল হাকিমের আন্তরিকতায়।

গর্জনিয়ার চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলাম এর সাথে যোগাযোগের জন্য তাহার মোবাইল ফোন নাম্বারে ফোন দিয়ে মোবাইল বন্ধ থাকায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে বর্তমান বাইশারী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আলম কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ব্রিজটি গর্জনিয়া এলাকার হলেও আগে যেহেতু বাইশারী চেয়ারম্যান করেছে, তাই পর্যালোচনা করে দেখা যাবে। এখন পার্বত্য এলাকা বাইশারীতে অনেক বেশি উন্নায়ন হচ্ছে ব্রিজটি চাইলে আমরা করে দিতে, পারি নজরে এসেছে তাই সামনে ব্রিজটি নিয়ে কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে সিদ্বান্ত নেবো।

Channel Cox News.


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

sixteen − sixteen =

আরো বিভন্ন বিভাগের নিউজ