ইসলামপুরে ভূমিদস্যু-দখলবাজদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সভায় কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি | ChannelCox.com

Najim UddinNajim Uddin
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০২:১৯ PM, ১০ সেপ্টেম্বর ২০২০

মোহাম্মদ নাজমুল সাঈদ সোহেল,চকরিয়া:

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার সীমান্তবর্তী নতুন অফিস এলাকায় ইসলামপুর ইউনিয়নের জনসাধারণের আয়োজনে দখলবাজ, ভূমিদস্যু ও পাহাড় খেকো কর্তৃক সাধারণ জনগণকে প্রাণনাশের হুমকি এবং ন্যায্য অধিকার আদায়ে এক প্রতিবাদ সভার আয়োজন করেছে ভুক্তভোগী স্থানীয় জনতা। বুধবার (৯ সেপ্টম্বর) বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে ইসলামপুর নতুন অফিসস্থ আল-আমিন সুপার মার্কেট এলাকায় এ প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জনাগেছে, কক্সবাজার সদরের ইসলামপুর ইউনিয়নস্থ কৈলাশের ঘোনা লক্ষাখালী সরকারি এক নম্বর খাস খতিয়ানের জায়গা ৪নম্বর সিটের দাগ নম্বর ৩২৪৭ ও ৩২৪৮ দাগের ২৩.১৩ একর জমি জবর-দখলে নিতে মেতে উঠেছে ওই ইউনিয়নের কতিপয় ভূমিদস্যু ও দখলবাজচক্র।

স্থানীয় জনসাধারণের অভিযোগ, ইসলামপুর ইউনিয়নস্থ কৈলাশের ঘোনা লক্ষাখালী সরকারি জায়গা ও খাল দখল করে বাঁধ নির্মাণ করে যাচ্ছে একটি প্রভাবশালী মহল। এতে জায়গা দখলের সম্পূর্ণ দেখভাল ও নেতৃত্বে দিচ্ছেন ইসলামপুর ইউনিয়নের মুখোশদারী জনপ্রতিনিধি ও দখলবাজ চক্র। এই দখলবাজদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করলেই তারা সাধারণ জনগণকে নানা ধরনের হয়রানি ও হুমকি দেন। তাদের ভয়ে জনগণ কোন ধরণের টু শব্দ করতেও সাহস পাইনা। জিম্মি করে রেখেছে নিরীহ মানুষকে।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা বলেন, জোর করে ভয় দেখিয়ে নিরীহ জনসাধারণের জমি জবরদখলে নিতে সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে এলাকায় মহড়া দিয়ে যাচ্ছে। এতে তাদের ভয়ে এলাকার জনগণ দখলবাজ, ভূমিদস্যু ও পাহাড় খেকোদের নিয়ে চরম আতঙ্কে ভুগছে।

বক্তারা বলেন, সরকারি জমি জবরদখলের প্রতিবাদ করায় ইসলামপুরের স্থানীয় নিরীহ জনসাধারণের বিরুদ্ধে প্রতিনিয়ত প্রাণনাশের হুমকি দেন দখলবাজচক্র। এছাড়াও তারা এলাকার নিরীহ জনসাধারণকে রাজনৈতিক প্রভাব বিস্তার করে ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদর্শন করেন। জোরপূর্বক স্থানীয় লোকজনের জমি ও সরকারি সম্পত্তি গ্রাস করার পাঁয়তারা করছেন এ দখলবাজ চক্রটি। ভূমিদস্যুতা, দখলবাজি ও নিরীহ জনসাধারণের হুমকি অবিলম্বে বন্ধ করে ভুক্তভোগী জনগণের মনের ভাষা বুঝে তাদের ন্যায্য অধিকার ফিরিয়ে দিতে প্রতিবাদ সভায় আহ্বান জানান।

বক্তারা আরও বলেন, ইসলামপুর এলাকার সাধারণ জনগণের ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হলে ভূমিদস্যু ও দখলবাজ চক্রদের বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন বক্তারা। মালিকানাধীন চিংড়ি ঘেরের জমি ন্যায্য মূল্য পরিশোধ না করে জোরপূর্বক ভোগ দখলে রয়েছে। মূল লক্ষ্য উদ্দেশ্য হচ্ছে, আমাদের মালিকানাধীন চিংড়িঘের জমি দখলদারদের আওতাধীন রেখে পার্শ্ববর্তী সরকারি খাস জমি ভেসে ওঠা চর দখল করার পাঁয়তারা। শুধু তাই নয় স্বাভাবিক নদীর প্রবাহমান স্রোতের গতি বাধা প্রদান করায় পার্শ্ববর্তী চিংড়িঘেৱ ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে এবং নদীর স্বাভাবিক গতি ভিন্ন দিকে প্রবাহিত হওয়ার কারণে নদী ভরাট হওয়ার পথে। নদী ভরাট হওয়ার কারণে দেশের অন্যতম লবণ শিল্প ইসলামপুর লবণ কারখানায় লবণ বোঝায় নৌকা বিঘ্ন সৃষ্টি হচ্ছে। যাহা কক্সবাজারের লবণ শিল্প হুমকির মুখে। যার ফলে দেশের অর্থনীতিতে বিরূপ প্রভাব সৃষ্টি হওয়ার শঙ্কা ও রয়েছে। এছাড়াও স্থানীয় জনগণ এই দখলবাজ ও ভূমিদস্যু চক্রের ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Channel Cox News.

আপনার মতামত লিখুন :