• বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১০:৫৯ পূর্বাহ্ন

কক্সবাজারে একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে নাঃ জেলা প্রশাসক

Md. Nazim Uddin
আপডেট : শুক্রবার, ১৮ জুন, ২০২১

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ ভাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আজন্ম লালিত স্বপ্ন ছিল বাংলার গরীব দুঃখী নিরন্ন মানুষের মুখে হাসি ফোটাবার। “মুজিববর্ষে বাংলাদেশের একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না ” গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই মহতী স্বপ্নকে বাস্তবে রুপান্তরের লক্ষ্যে খাসজমি বন্দোবস্ত প্রদানপূর্বক ভূমিহীন ও গৃহহীন অর্থাৎ ‘ক’ শ্রেণির পরিবারের জন্য একক গৃহ নির্মাণ কার্যক্রম চলমান রয়েছে। বিগত জানুয়ারি মাসে ১ম পর্যায়ে সম্পন্ন হওয়া গৃহ সমূহ উপকার ভোগী পরিবারের অনুকূলে হস্তান্তর করা হয়, যার মধ্যে কক্সবাজার জেলায় ৩০৩টি গৃহ অন্তর্ভুক্ত ছিল। এরই ধারাবাহিকতায় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী রবিবার ২০ জুন ২০২১ইং তারিখ সকাল ১০.৩০ মিনিটের সময় ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে ২য় পর্যায়ে সারা দেশে মোট ৫৩,৩৪০টি উপকার ভোগী পরিবারের অনুকূলে জমি ও গৃহ হস্তান্তর কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করবেন।

তৎমধ্যে কক্সবাজার জেলায় মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবার ঘর পাচ্ছে ১৪২৩টি। এই প্রকল্পের আওতায় ১ম পর্যায়ে গত জানুয়ারি মাসে ৩০৩ টি পরিবার নতুন বাড়ি পেয়েছে। আগামী রবিবার ২০ জুন ১০১৮ পরিবারকে নতুন ঘর হস্তান্তর করা হবে। এছাড়া আগামী ৩০ জুনের মধ্যে আরও ১০২টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে বিনামূল্যে জমিসহ ঘর প্রদান করা হবে। এ নিয়ে জেলায় মোট ১৪২৩টি গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবার মাথা গোঁজার ঠাঁই পাবে বলে জানান জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ।

জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ বলেন, বিগত ২৩ জানুয়ারি ১ম পর্যায়ে ৩০৩টি গৃহ ও ভূমিহীন পরিবারকে ঘর দেয়া হয়েছে। ২য় পর্যায়ে মোট ১০১৮টি পরিবার পাবে নতুন ঘর। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোববার সকাল ১০.৩০ মিনিটের সময় ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় দ্বিতীয় ধাপে ভূমিহীন, গৃহহীন এসব পরিবারকে বিনামূল্যে দুই শতক জমিসহ সেমি পাকা ঘর প্রদান কার্যক্রমের উদ্বোধন করবেন। শুক্রবার (১৮ জুন) জেলা প্রশাসকের হল রুমে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ। তিনি বলেন বিভিন্ন দেশে ভূমিহীন, গৃহহীনদের ঘরবাড়ি নির্মাণের জন্য সুদবিহীন ঋণ দেওয়ার নজির আছে, কিন্তু ভূমিহীন-গৃহহীনদের ডেকে বাড়ি-ঘর দেওয়ার নজির আর নেই।

জেলা প্রশাসক বলেন, অসহায় মানুষকে এভাবে ঘর দেওয়া ‘অন্তর্ভুক্তি উন্নয়নে শেখ হাসিনা মডেল’। বিশ্বে এটা নতুন মডেল, আগে কখনও কেউ এটা ভাবেননি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এই “মুজিববর্ষে বাংলাদেশের একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না”। তেমনি কক্সবাজারেও একজন মানুষ গৃহহীন থাকবে না। সরকার অসহায় ভূমিহীন-গৃহহীনদের ঘর দেওয়ার পাশাপাশি তাদের কর্মসংস্থানে প্রশিক্ষণ দেওয়ার কথা উল্লেখ করেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ এলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে, দুর্নীতি ও অনিয়মের বিষয়ে আমাদের অবস্থান সবসময় জিরো টলারেন্স।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক শ্রাবস্তী রায়, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আমিন আল পারভেজ, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুরাইয়া আক্তার সুইটি, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এড. ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান ও কক্সবাজার প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো. মুজিবুল ইসলাম।


আরো বিভন্ন বিভাগের নিউজ