• শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:৩৯ পূর্বাহ্ন

রোহিঙ্গা ক্যাম্প বাঁচাতে প্রচুর গাছ লাগানোর প্রয়োজন।

সংবাদদাতা
আপডেট : শনিবার, ১ জুন, ২০১৯

মনছুর আলম : মায়ানমার থেকে চলে আসা বাংলাদেশে ১২লাখ মানুষ অবস্থান করছে, সবুজ শ্যামল পাহাড় গুলি কেটে তৈরি হয়েছে হাজার হাজার জন বসতি ও ভিবন্ন এনজিও কর্ম স্থান। গাছ না থাকার কারণে প্রচুর জলবায়ুর পরিবর্তন হয়েছে ঠিক মত বৃষ্টি হচ্ছে না,


বাতাস হয় না, যার করণে প্রচুর গরম হয় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে। অনুসন্ধান করে দেখা গেছে পাহাড় কেটে ঘর তৈরি করার পর অবশিষ্ট পড়ে আছে অপ্রয়োজনীয় জায়গা সেই জায়গাতে গাছের চারা রোপন করলে ঠান্ডা থাকবে ঘর গুলি, অন্য দিকে বৃষ্টির দিলে পাহাড় ধসে পরার সম্ভবনা কম, নিয়ম অনুসারে জলবায়ুর পরির্বতন থাকবে। ক্যাম্পে বাস্তবে একটা প্রমান পাওয়া গেল যে কিছু ক্যাম্পে গাছ আছে সেই ক্যাম্প গুলি অনেক সুন্দর পরিবেশ ও ঠান্ডা হাওয়া দেখা যায়, সে জায়গার মানুষ গুলি সুন্দর ভাবে বাস করতে দেখা গেছে এভাবে প্রতিটি জায়গা গাছ রুপন করলে ক্যাম্পের অবস্থা উন্নতির দিকে থাকবে এবং দেশের জন্য অনেক বড় একটা উপকার হবে। স্থানীয় লোক জন বলেন রোহিঙ্গা আসার পর থেকে আমাদের এলাকায় জলবায়ু পরিবর্তন ঘটেছে, যার ফলে আমাদের চার দিকে সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে, শান্তিতে বসবাস করতে বন রক্ষার অতি প্রয়োজন ছিল, বন না থাকলে পরিবেশ নষ্ট হয়ে যায় সেই পরিবেশ নষ্ট হবার জন্য দায়ী এক মাত্র রোহিঙ্গা। গাছের ব্যাপারে রোহিঙ্গাদের প্রশ্ন করলে আপনারা ঘরের পাশে খালি জায়গাতে গাছ রোপন করছেন না কেন? জবাবে বলেন আমরা গাছ কোথায় থেকে পাব, যদি কোন সংস্থা গাছের ছারা দিলে তাহলে আমরা রোপন করতে পারব। গাছ লাগালে যেমন দেশের লাভ হবে তেমনি, রোহিঙ্গা অবস্থারত জায়গা গুলো ভাল থাকবে, পাহাড় ধসে পরবে না এবং প্রতিটি বাড়ি গাছের নিচে থাকবে সুন্দর পরিবেশে আর নিয়মিত বৃষ্টি পাবে দেশের মানুষ, এখন আমরা ছয় ঋতু পাচ্ছি না তার কারণ গাছ কমে যাওয়া। আশা করি কোন বন অধিদপ্তরের অফিসারের সামনে এই লেখাটি উপস্থাপন হওয়া জরুরী মনে করছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

11 + sixteen =

আরো বিভন্ন বিভাগের নিউজ