মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা বরাবর মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম কক্সবাজারের পক্ষে সাংবাদিক মোঃ শহীদুল্লাহ মেম্বারের খোলা চিঠি

Channel Cox.ComChannel Cox.Com
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১২:১১ AM, ০৬ এপ্রিল ২০২০

মাননীয়
প্রধানমন্ত্রী
দেশরত্ন শেখ হাসিনা

আসসালামু আলাইকুম।

বিষয়ঃ আপনার সদ্য ঘোষিত প্রণোদনা থেকে বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের দেশব্যাপী প্রত্যন্ত অঞ্চলে দায়িত্ব পালনকারী সকল অসহায় মফস্বল সাংবাদিকদের সাহায্য প্রদান করতে আপনার বরাবর আমার আজকের খোলা চিঠি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
বর্তমান বৈশ্বিক মহামারী কোভিড নাইন্টিন করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হয়ে গোটা বিশ্বের অবস্থা আজ চরম আকার ধারণ করেছে। অনেক বড় বড় শক্তিশালী দেশ করোনা ভাইরাস সংক্রমণের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে করতে যেখানে হিমশিম খাচ্ছে। আলহামদুলিল্লাহ সেখানে মহান আল্লাহ রহমানুর রহিমের অশেষ কৃপায় আপনার উছিলায় আমাদের দেশে করোনা ভাইরাস সংক্রমণে এখনো পর্যন্ত মহামারীর বড় আকার ধারণ করেনি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে গোটা বিশ্বের অর্থনৈতিক অবস্থা স্থবির হয়ে পড়েছে। এর ধারাবাহিকতা বাংলাদেশেও পড়েছে। এই অবস্থাকে মোকাবেলা করতে আপনি ৫ মার্চ সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রায় ৭৩ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনার ঘোষণা দিয়েছেন। আমরা আশাবাদী এর সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করা গেলে থমকে যাওয়া অর্থনীতির গতি ফিরে পাবে এবং বাংলাদেশ আপনার নেতৃত্বে আগের মতো আবার এগিয়ে যাবে ইনশাআল্লাহ।

তার পাশাপাশি আপনি সকল জনগণকে আতঙ্কিত না হয়ে সচেতনতার সহিত সতর্কতা অবলম্বন করার নির্দেশনা দিয়েছেন। আমরা মফস্বলের সাংবাদিকেরা আপনার দেওয়া নির্দেশনা মতে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার আহবান জানিয়েছেন । আমরা মফস্বল সাংবাদিকেরা আপনার সেই নির্দেশনা জনগনের কাছে পৌঁছে দিচ্ছি। যাতে জনগন সচেতন হয়ে করোনা মোকাবেলা করতে পারেন।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
২০০৮ পরবর্তী সময় থেকে আপনার নেতৃত্বে দেশ পরিচালিত হচ্ছে। সেই থেকে আমরা বাংলাদেশের মফস্বলের সাংবাদিকেরা স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রতি অবিচল বিশ্বাস ও আস্থা রেখে, আমরা আপনার উন্নয়ন থেকে শুরু করে, আপনার জঙ্গীবাদ, সকল প্রকার মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা , দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি, বোমা ও অগ্নি সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে আমরা মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে প্রতিটি কর্মকাণ্ডের তথ্য চিত্র বাংলার কোটি কোটি মানুষের কাছে তুলে ধরেছি। অনেক বড় বড় ইয়াবা গড ফাদার, দুর্নীতিবাজ, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ,দখলবাজ, টেন্ডারবাজ সহ রাষ্ট্র ও সমাজের বড় বড় অপরাধীদের স্বরূপ উন্মোচন করার মত কঠিন ঝুঁকিপূর্ণ কাজ আমরা মফস্বলের সাংবাদিকেরা করেছি বর্তমানেও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেই কাজ করে যাচ্ছি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
আমরা বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে দায়িত্ব পালনকারী মফস্বলের সাংবাদিকেরা স্বাধীনতার পর থেকে কোন প্রকার সরকারি সাহায্য সহযোগিতা পায়নি। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কিন্তু সাংবাদিকদের রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ হিসাবে ঘোষণা দিয়েছেন এবং সাংবাদিকদের জন্য জাতীয় ওয়েজ বোর্ড ঘোষণা করেছিলেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনককে স্বপরিবারে হত্যার পর তা আর কোন সরকার বাস্তবায়ন করেনি। ৭৫ পরবর্তী সরকার গুলো তাদের পছন্দ মত কিছু কিছু সাংবাদিকদের সুবিধা দিয়েছিল। মফস্বলে দায়িত্ব পালন করা সাংবাদিকরা রাষ্ট্রীয় সুবিধা পায়নি বললেই চলে। তার পরও মফস্বলের সাংবাদিকেরা খেয়ে না খেয়ে নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করে অনেকে মৃত্যু বরণ করেছেন। বর্তমানে অন্যজন সেই শুন্য স্থান পূর্ণ করে নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

এখনো পর্যন্ত মফস্বলের সাংবাদিকেরা সরকার ঘোষিত ওয়েজ বোর্ড ভুক্ত হয়নি। তবে কিছু কিছু সংবাদপত্রের মালিকেরা কিছু মফস্বলের সাংবাদিকদের সম্মানী প্রদান করলেও অধিকাংশ সাংবাদিকেরা শুধুমাত্র নিজেদের সংগৃহীত বিজ্ঞাপন থেকে পাওয়া পার্সেন্টেজ দিয়ে চরম কষ্ট ভোগ করে নিজেদের জীবন চালাচ্ছেন। বর্তমান বৈশ্বিক মহামারী কোভিড নাইন্টিন করোনা ভাইরাস সংক্রমণের হাত থেকে দেশের জনগণকে বাঁচাতে আপনি প্রথমে ৪টি এবং পরে ৩১ টি নির্দেশনা মেনে চলার আহবান জানিয়েছেন। স্বাস্থ্য বিধি মেনে ঘরে থাকুন, নিজে বাঁচুন, পরিবারকে বাঁচান, দেশকে বাঁচান। এই নির্দেশনা গুলো জনগণের কাছে পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্ব সরকারের পাশাপাশি আমরা মফস্বল সাংবাদিকরা পালন করে যাচ্ছি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী
করোনা ভাইরাস আতঙ্কে দেশের সরকারি বেসরকারি অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠান গুলো বন্ধ রয়েছে। বর্তমানে আমরা মফস্বল সাংবাদিকেরা বিজ্ঞাপন পাওয়াতো দুরের কথা কারো কাছে কোন প্রকার সাহায্য পাচ্ছিনা। বলতে গেলে বাংলাদেশের মফস্বলের সাংবাদিকেরা চরম অভাবের মধ্যে দিনাতিপাত করছে। অনেকেই উপোস থাকার পরও আত্মসম্মানবোধের তাগিদে কারো কাছে কোন কিছু চাইতেই পারছেনা। এমতাবস্থায় আপনি ছাড়া আমাদের বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিকদের সাহায্য প্রদান করার মতো কেউ নেই। আমরা মফস্বলের অবহেলিত অভাবগ্রস্ত সাংবাদিকেরা বর্তমান প্রেক্ষাপটে আপনার পক্ষ হতে সদয় আর্থিক সহযোগিতা পেতে মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম কক্সবাজার জেলার সহ সভাপতি হিসাবে বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের পক্ষে আপনার বরাবর এই খোলা চিঠি খানা দিতে বাধ্য হয়েছি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের প্রতিটি সদস্য আপনার প্রতিটি কর্মকাণ্ডের অতন্দ্র প্রহরীর মত অতীতের মত বর্তমান সময় পর্যন্ত যেভাবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন ভবিষ্যতেও দায়িত্ব পালন করে যাবেন ইনশাআল্লাহ। আমরা সার্বক্ষণিক আপনার প্রতিটি কাজের বার্তা বাহক হিসাবে দায়িত্ব পালনে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। তেমনি আপনার নির্দেশনা মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়ন হচ্ছে কিনা এবং করোনা সহায়তা নিয়ে কোথাও দুর্নীতি হচ্ছে কিনা দেখতে সার্বক্ষণিক অতন্দ্র প্রহরীর মত দায়িত্ব পালন করে যাবো আমরা বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের প্রতিটি সদস্যরা।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
আপনি মানবতার মা হিসাবে বর্তমান প্রেক্ষাপটে অভাবগ্রস্থ বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের দেশব্যাপী সকল সদস্যদের সাহায্য করতে আপনার যথাযথ আদেশ কামণা করছি সাথে সাথে বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের সদস্যরা
মহান আল্লাহর দরবারে এই বৈশ্বিক মহামারী কোভিড নাইন্টিন করোনা ভাইরাস সংক্রমণ থেকে আমাদের বাংলাদেশকে রক্ষা করার ফরিয়াদ জানাচ্ছি এবং মহান আল্লাহর কাছে আপনার দীর্ঘায়ু কামণা করে আমার আজকের খোলা চিঠি এখানে শেষ করছি। আল্লাহ আমাদের হেফাজত করুন আমিন।

জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু জয়তু দেশরত্ন শেখ হাসিনা।

নিবেদকঃ
মোঃ শহীদুল্লাহ (সাংবাদিক)
সহ সভাপতি
বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম কক্সবাজার জেলা।
তারিখঃ ০৫/০৪/২০২০খ্রীঃ

আপনার মতামত লিখুন :