নেটওয়ার্ক বিড়ম্বনায় করোনার খবর পাওয়া কঠিন বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে

Channel Cox.ComChannel Cox.Com
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৮:২৭ PM, ০৯ এপ্রিল ২০২০

ওমর ফারুক টেকনাফ থেকে :

রোহিঙ্গাদের কারণে স্থানীয়দের ইন্টারনেট নেটওয়ার্ক এর বিড়ম্ভবনার শেষ নেই। হোয়াইক্যং ক‍্যাম্প এলাকায় ভয়াবহ নেটওয়ার্ক বিড়ম্বনায় করোনার খবর পাওয়া কঠিন বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। অতিসত্বর ত্রুটিপূর্ণ এলাকা গুলোতে বৈশ্বিক করোনা পরিস্থিতিতে সাময়িক সময়ের জন্য হলেও ইন্টারনেট সেবা (থ্রী জি ও,ফোর জি) চালুর জোর দাবী জানিয়েছেন অত্র এলাকার বাসিন্দারা।

বিশেষ করে টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়ন আর উখিয়া উপজেলার পালংখালী ইউনিয়নে ইন্টারনেট সমস্যা বেশি প্রকট একেবারে জিরো পর্যায়ে বলা যায়। কিছু গ্রাম্য এলাকাতে এক নাগারে কয়েকটা কোম্পানির কোন ধরনের (টু জি) নেটওয়ার্ক ও পাওয়া যায়না। যেমন হোয়াইক্যং ইউনিয়নের বেশ কিছু গ্রাম উলুবনিয়া, মনিরঘোনা, কাটাখালী, কেরুনতলী, তুলাতলী, লম্বাবিল ইত্যাদি। আর উখিয়া উপজেলার পালংখালী ইউনিয়নে বটতলী, ফারিবিল, পালংখালী বাজার থাইংখালী, বালুখালী ত আছেই । এসব এলাকা গুলোতে রবি আছে ত গ্রামিণফোন নাই, গ্রামিণফোন আছে ত বাংলালিংক নাই!

ডিজিটাল এই যোগে গ্রাম গঞ্জের সাধরণ মানুষ বর্তমান সময়ে প্রিন্ট মিডিয়া ও ইলেকট্রিক মিডিয়ার চাইতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কেই বেশি গুরুত্বারুপ করে। সাধরণ মানুষ এই বৈশ্বিক ক্রান্তিলগ্নে প্রবাসে থাকা তাদের আত্বীয় স্বজনের খোজ খবর নিতে এখন, ইমু, ওয়াটস্যাপ ও মেসেঞ্জারের উপর বেশি নির্ভরশীল।
এই সুযোগে কিছু অসাধু wi fi ব্যাবসায়ীর কাছে এসব এলাকার মানুষ জিম্মি। এই ব্যায়বহুল wi fi সাধারণত অনেকের পক্ষে ব্যাবহার করা সম্ভব হয়ে ওঠেনা।

বিধায় বৈশ্বিক দুর্যোগ করোনার ব্যাপারে মহামাণ্য বাংলাদেশ সরকার ও জেলা প্রসাশনের অনেক মহা মুল্যবান গুরুত্বপুর্ণ দিক নির্দেশনা মুলক তথ্য এসব এলাকার মানুষেরর কাছে সাধরণত পৌছাতে অনেকটা সময় লেগে যায়। সঠিক তথ্য যতা সময়ে না পৌছাতে অনেক সময় সাধারণ মানুষের মাঝে গুজবের সৃষ্টি হয়।

পরিশেষে উপরোক্ত বিষয়ের উপর বৈশ্বিক করোনার এই ক্রান্তিলগ্নের সময়ের কথা বিবেচনা করে ক্রুটিপূর্ণ এলাকা গুলোতে সাময়িক সময়ের জন্য ইন্টারনেট সেবা চালু করে দেওয়ার জন্য মহামাণ্য জেলা প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসনের কাছে জোর দাবী জানাচ্ছেন স্থানীয়রা।

আপনার মতামত লিখুন :