করোনার ছুটিতে মহেশখালীতে মাথা ন্যাড়া করার হিড়িক, শখের বশে সেলফিতে ব্যস্ত অনেকে!

Channel Cox.ComChannel Cox.Com
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৮:০২ PM, ১১ এপ্রিল ২০২০

এ.এম হোবাইব সজীব,মহেশখালী থেকে:

করোনাভাইরাসের দূর্যোগে মহেশখালীতে ছাত্র,শিক্ষক, বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার সব বয়সের মানুষের মাঝে মাথা ন্যাড়া করার হিড়িক পড়েছে। আজ ১১ এপ্রিল শনিবার আবার অনেকে মাথা ন্যাড়া করে শখের বশে সোস্যল মিড়িয়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের নিজের টাইম লাইনে সেলফি তুলে আনন্দ মনে ছবি আপলোড ও করতে দেখা গেছে। অপরনদিকে করোনা ভাইরাস নিয়ে আতঙ্কের মধ্যে মাথা ন্যাড়া করার দৃশ্য মানুষের মধ্যে কৌতূহলের সৃষ্টি হয়েছে।

জানা গেছে, করোনা সংক্রমণ রোধে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়। একই সঙ্গে অবস্থান করতে বলা হয় বাসা-বাড়িতে। এই সুযোগে অনেককেই মাথা ন্যাড়া করতে দেখা গেছে। মাথার চুল ফেলে কেউ নীরবে বাসায় অবস্থান করছেন আবার অনেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করছেন। মাথার চুল ঘন হবে বলে কিছু দিন পরপরই অনেকেই চুল ফেলে দেন। এটা বেশ বড় বয়স পর্যন্ত চলে কারও কারও ক্ষেত্রে। যদিও বার বার ন্যাড়া করলেই যে মাথায় ভালো চুল গজাবে এ কথার কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। অনেকের মাঝে আবার প্রচলিত আছে, মাথা ন্যাড়া করলে মাথার চুল পড়া কমে যায়। প্রতিদিন কেউ না কেউ মাথা ন্যাড়া করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবি আপলোড করছেন।

তারা জানিয়েছেন, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে এখন সবাইকে বাসা-বাড়িতে থাকতে হচ্ছে। কতদিন পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে, তারা স্বাভাবিক কর্মজীবনে ফিরবেন, তার কোন নিশ্চয়তা নেই। এই সুযোগে মাথা ন্যাড়া করে নিচ্ছেন।তা ছাড়া বাইরে বের না হওয়ায় সামনা-সামনি কোনো বিরূপ মন্তব্য শোনার বা কারও মাধ্যমে বিরক্ত হওয়ার আশঙ্কা নেই। সরকারি নির্দেশনায় এখন অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের মতো সেলুনগুলোও বন্ধ রয়েছে। দীর্ঘদিন সেলুনে যেতে না পারায় মাথায় চুল বেড়ে যাচ্ছে। গরমের এই সময়ে চুল বেড়ে গিয়ে মাথা চুলকাচ্ছে। তাই বাড়িতে বসেই মাথা ন্যাড়া করে ফেলছেন। উপজেলার কালারমারছড়ার বাসিন্দা আতিকুল ইসলাম নামের একজন প্রকৌশলী তিনজন মিলে ন্যাড়া মাথার ছবি দিয়ে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন হাঁসি মাখা মুখে।

উপজেলার কালারমারছড়া ও মাতারবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের দুই জন শিক্ষক নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জানান, এমন অবস্থা চলতে থাকলে আমরা ও মাথা ন্যাড়া করার পথ বেঁচে নিব। কারন প্রতিটি ইউনিয়ন লগডাউন হওয়ায় মাথা ন্যাড়ার হিড়িক থেমে নাই।

আপনার মতামত লিখুন :