টেকনাফ সড়ক যেনো মরণ ফাঁদ!

Channel Cox.ComChannel Cox.Com
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০২:২৩ PM, ২৭ এপ্রিল ২০২০

ওমর ফারুক,টেকনাফ থেকে:

কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কের পালংখালী, থাইংখালী, হোয়াইক্যং, লম্বাবিল, উনচিপ্রাং, কানজরপাড়া, বটতলী, নয়াপাড়া, মিনাবাজার, নয়া বাজার, খারাংখালী, মৌলভীবাজার সহ গুরুত্বপূর্ণ স্টেশনে ব্যাপক কাঁদা ও গর্তে পানি জমে পড়ে ও পথচারীরা ব্যাপক দূর্ভোগ অবস্থায় পড়েছে। এইসব সড়কগুলো দিয়ে দিনরাত অতিবাহিত হচ্ছে, রোহিঙ্গাদের জন্য নিয়োজিত এনজিও সংস্থাগুলোর বিভিন্ন মালামাল বহনকারী গাড়ি ও তাদেরই সংস্থায় কর্মরত দেশি-বিদেশি কর্মকর্তাগণের বিভিন্ন গাড়ি। অনেকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সড়কে চলাচল করতে গিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হয়ে আহত ও নিহত হওয়ার খবর দিন দিন যেন লোভ পাচ্ছে।

গত শুক্রবার টেকনাফ বন্দর হয়ে আসা ট্রাকটি উল্টে যায়। বিশেষ করে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মালবাহী ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান ও এনজিওদের মাত্রাতিরিক্ত যানবাহন চলাচলের কারণে কক্সবাজার টেকনাফ সড়কের এই করুন অবস্থা বলে মনে করেছেন স্থানীয় সচেতন মহল। তবে এসব দেখার বা বলার কেউ না থাকায় সাধারণ মানুষের মনে ক্ষোভ বাড়ছে।

রবিবার(২৬শে এপ্রিল) সকালে টেকনাফে বিভিন্ন স্থান ঘুরে দেখা গেছে, পালংখালী সীমান্ত ব্রিজ থেকে শুরু করে টেকনাফ বাজার পর্যন্ত এই দীর্ঘ সড়কের বিভিন্ন স্থানে খানা খানা খন্দক, বড় বড় গর্ত ও পানি নিস্কাশন না থাকায় কাঁদা মাটি সৃষ্টির পানিতে ভিজে জনসাধারণের চলাচলে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। বিশেষ করে নয়াবাজার স্টেশন এবং উনচিপ্রাংয়ের অবস্থানও বেহাল দশা।

যার ফলে সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের বাধার সম্মূখীন হয়ে দাড়িয়েছে। এসব বিষয়ে প্রতিবাদ করার কেউ নেই বলে ক্ষোভ প্রকাশ করে হোয়াইক্যং ইউনিয়নের নয়াপড়া এলাকার বাসিন্দা সাংবাদিক জাহেদ হোসেন জানান, সড়ক দীর্ঘদিন ধরে উন্নয়নে দু’পাশে নালা খনন সৃষ্টি লন্ডভন্ড করে ফেলেছে। যার কারনে কাঁদা মাটি সৃষ্টি সাধারণ পথচারীকে দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে।

আরো জানা যায়, এ সড়ক দিয়ে গত ২০১৭ সালের আগস্টের পর থেকে প্রতিদিন শত শত মালবাহী ট্রাক, পিকাপ, কাভার্ড ভ্যান, জিপ নির্মাণ সামগ্রী নিয়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে যাতায়াত করে আসছে। এছাড়াও বাঁশ বোঝাই ট্রাক কক্সবাজার টেকনাফ সড়ককে লন্ডভন্ড করে ফেলেছে, বিশেষ করে এনজিওগুলো। এই এনজিও এর হাজারো গাড়ি চলাচল করায় সড়কটি অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দা ফরিদুল ইসলাম জানান, হাজার হাজার যানবাহন মাত্রাতিরিক্ত চলাচলের কারণে কক্সবাজার টেকনাফ সড়কটি মারাত্মক ঝুকিপূর্ণ হয়েছে। নিরাপদে কোথাও যাওয়া আসা কঠিন হয়ে পড়েছে। বড় বড় খানা খন্দকের কারণে ঘটছে দুর্ঘটনা, বাড়ছে জীবনের ঝুঁকি।

সচেতন নাগরিক সমাজের অভিমত, রোহিঙ্গা ইস্যু ও মিয়ানমারের বাস্তচ্যুত জনগোষ্ঠী আশ্রয় নেওয়া কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ হলেও সড়ক ও জনপদ বিভাগ দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিচ্ছে। এ সড়কে শত শত খানা খন্দকে ভরপুর লন্ডভন্ড হয়ে গেলেও সওজ বিভাগ সংস্কারের কোনো গরজ মনে করছে না। বর্তমানে বলতে গেলে টেকনাফ সড়কটি মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে।

এমতাবস্থায় কক্সবাজার টেকনাফ প্রধান সড়কে নয়াবাজার স্টেশনের বৃহৎ ভাঙা রাস্তা সংস্কারের মাধ্যমে ভয়াবহ বিপদ থেকে রক্ষা পেতে এখনই “ইমার্জেন্সি ফোর্স” পাঠিয়ে অনতিবিলম্বে সংস্কার কাজ শুরু করার জন্য প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছেন নয়াবাজারবাসী।

আপনার মতামত লিখুন :