• শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০৮:০২ অপরাহ্ন

থামছে না চাল চুরি | সি কক্স নিউজ

সংবাদদাতা
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ৭ মে, ২০২০
২৫ জেলায় চাল চুরি ৩৪১ টন, ৯১ মামলা গ্রেফতার ৮৯ ছবি: সংগ্রহিত

সি কক্স ডেস্ক নিউজ:

থামছে না সরকারি ত্রাণের চাল চুরি। ২৫ জেলায় প্রায় ৩৪১ মেট্রিক টন চাল চুরির অভিযোগ রয়েছে। চাল চুরি-আত্মসাতের ঘটনায় দেশের বিভিন্ন এলাকায় মামলা হয়েছে ৯১টি। এর সঙ্গে জড়িত ৮৯ জন আটকও হয়েছে। করোনা পরিস্থিতিতে বেকায়দায় পড়া গরিব-অসহায় মানুষকে সহায়তা দিতে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করছে সরকার।

আর এই চাল চুরির অভিযোগ উঠছে জনপ্রতিনিধি ও ডিলারদের বিরুদ্ধে। ত্রাণ আত্মসাৎকারীরা অনেকে হাতেনাতে ধরাও পড়েছেন। এসব ঘটনায় জড়িত জনপ্রতিনিধি এবং ডিলারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থাও নিচ্ছে সরকার।

জানা গেছে, ৬৪ জেলায় ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত চাল বরাদ্দ করা হয়েছে ১ লাখ ১৪ হাজার ৬৭ মেট্রিক টন। আর বিতরণ করা হয়েছে ৮৮ হাজার ৫৮৩ মেট্রিক টন। বিতরণ করা চালে উপকারভোগী পরিবারের সংখ্যা ৭৮ লাখ ৩৭ হাজার ৭৩৫টি।

আর উপকারভোগী লোকসংখ্যা ৩ কোটি ৫০ লাখ ১৯ হাজার ৭২ জন। এর মধ্যে ২৫ জেলায় প্রায় ৩৪১ মেট্রিক টন চাল চুরির অভিযোগ উঠেছে। আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্যানুসারে, ভোলা জেলায় ওএমএস এবং জেলেদের চাল আত্মসাতের প্রায় ৩ মেট্রিক টন চাল উদ্ধার হয়েছে। চাল চুরির ঘটনায় মামলা হয়েছে ৯টি। গ্রেফতার হয়েছে ১১ জন। কুষ্টিয়ায় ত্রাণসামগ্রী আত্মসাতের অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছেন একজন ওয়ার্ড কাউন্সিলর। আর এ ঘটনায় মামলা হয়েছে ১টি। বরখাস্ত হয়েছেন ২ জন জনপ্রতিনিধি। চাঁপাইনবাবগঞ্জে ওএমএসের ৩০০ বস্তায় ১৫ মেট্রিক টন চাল উদ্ধার করা হয়েছে। চাল আত্মসাতের ঘটনায় ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ

কিশোরগঞ্জে চার চুরির ঘটনায় আটটি মামলা হয়েছে। গ্রেফতার হয়েছে ১৫ জন। দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে ২৬ টন, সদর উপজেলায় ৩ টন, বিরামপুরে ২৭০ কেজি চাল উদ্ধার করা হয়। বিরামপুর উপজেলার ওএমএস কর্মসূচির চাল চুরির অভিযোগে এক ডিলারকে আটক করে ১৫ দিনের কারাদন্ড দেওয়া হয়। এ ঘটনায় চাল ডিলারসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়। ডিলারশিপ বাতিলও করা হয়। পাবনার বিভিন্ন এলাকা থেকে চুরির ১১.৬৫ মেট্রিক টন চাল উদ্ধার হয়েছে। চাল চুরির সঙ্গে জড়িত থাকায় ৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা হয়েছে ২টি। নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে ত্রাণের চাল আত্মসাৎ ও মানুষের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করায় পিরোজপুর ইউনিয়নের এক মেম্বারকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। বরিশালের বিভিন্ন এলাকা থেকে চুরি যাওয়া ১২.৩৩ মেট্রিক টন চাল (১২ হাজার ৩৩০ কেজি) উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় গ্রেফতার হয়েছে ৭ জন। এর মধ্যে জনপ্রতিনিধি ২ জন। আর চাল চুরির সঙ্গে জড়িত থাকায় বহিষ্কার হয়েছেন ২ জন চেয়ারম্যান এবং ২ জন মেম্বার। আর পলাতকদের বিরুদ্ধে দুটি মামলা হয়েছে। কক্সবাজারের বিভিন্ন এলাকা থেকে ১৫ মেট্রিক টন চুরি হওয়া চাল উদ্ধার করা হয়েছে। চাল চুরির ঘটনায় জড়িত থাকায় এক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। শেরপুরে ১.৩১৫ টন (১৩১৫ কেজি) চুরি যাওয়া চাল উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় তিনটি মামলা এবং ৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। চট্টগ্রামে চুরি হওয়া ৩৬১ বস্তা চাল উদ্ধার করা হয়েছে। প্রতি বস্তায় ৫০ কেজি করে ১৮ মেট্রিক টন চাল। এ ছাড়া নগরীর একটি ব্যক্তিমালিকানাধীন চালের গুদাম থেকে ১৫০০ খালি চালের বস্তা উদ্ধার করা হয়। চাল চুরির ঘটনায় চট্টগ্রামে এখন পর্যন্ত ৪টি মামলা করা হয়েছে। সিরাজগঞ্জে বিভিন্ন অভিযানে এ পর্যন্ত প্রায় ২০ টন চাল উদ্ধার হয়েছে। একজন ডিলার ও একজন ইউপি সদস্যসহ ৭ পাচারকারী আটক হয়েছেন। সিলেটের জকিগঞ্জের কালিগঞ্জে ওএমএসের ৫৭০টি বস্তায় প্রায় ২৮ মেট্রিক টন চালভর্তি ট্রাক আটক করে স্থানীয় জনতা। নওগাঁয় ৪৭৫ বস্তা বা ২৩ টন চাল উদ্ধার করা হয়েছে। চাল চুরির ঘটনায় ৩ জন গ্রেফতার হয়েছেন। আর মামলা হয়েছে ৫টি। নড়াইলের বিভিন্ন জায়গা থেকে ৪০ মেট্রিক টন চাল উদ্ধার করা হয়েছে। এসব ঘটনায় আটটি মামলা হয়েছে। আর এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ৫ জন জনপ্রতিনিধিসহ ৭ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঠাকুরগাঁওয়ে বিভিন্ন এলাকা থেকে ২৬.৬৭ টন চাল উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। ২ জনকে আটক করা হয়েছে। চাল চুরির সঙ্গে যুক্ত থাকায় একজন নারী মেম্বারকে বরখাস্ত করা হয়েছে। জামালপুরে ১৩৯১ বস্তা চাল উদ্ধারের খবর পাওয়া গেছে। প্রতি বস্তায় ৫০ কেজি করে প্রায় ৭০ টন চাল। চাল চুরির ঘটনায় ৪টি মামলা এবং ৫ জনকে আটক করা হয়েছে। রাজবাড়ীর বিভিন্ন জায়গা থেকে ৪.০৩ টন চাল উদ্ধার করা হয়েছে। মামলা হয়েছে ১টি। নেত্রকোনায় চুরি হওয়ার পর ৯৯ বস্তা (প্রতি বস্তায় ৫০ কেজি করে) চাল উদ্ধার করা হয়েছে। গ্রেফতার হয়েছে ২ জন ওএমএস ডিলার। মামলা হয়েছে ২টি। ঝালকাঠিতে আত্মসাতের চেষ্টা করার ১৯২ কেজি চাল উদ্ধার করা হয়েছে। গ্রেফতার হয়েছে ৩ জন। চাল চুরি সংক্রান্ত মোট চারটি মামলা হয়েছে। খাগড়াছড়িতে প্রায় আট মেট্রিক টন চাল উদ্ধার করা হয়েছে। তিনটি মামলাও হয়েছে। এদিকে কুষ্টিয়ার কুমারখালী পৌরসভার মেয়রসহ ৭ কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে সরকারি ত্রাণ বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি আদালতের দৃষ্টিগোচর হলে স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে আদালত বিষয়টি আমলে নেয়। এ ছাড়া অভিযুক্ত পৌরসভার মেয়রসহ ৭ কাউন্সিলরের অনিয়ম সংক্রান্ত বিষয়ে তদন্তপূর্বক আগামী ২৩ জুলাইয়ের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ওসিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলি আদালতের বিচারক এক আদেশে এ নোটিস জারি করেন। জানা যায়, পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে বরাদ্দকৃত ১৩৫০ প্যাকেট ত্রাণ কুমারখালীর মেয়রের নিকট থেকে কাউন্সিলরগণ গ্রহণ করেন এবং পরে তা তালিকাভুক্তদের মধ্যে বিতরণ না করে দেওয়া হয় অন্যদের। এ ঘটনায় পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের জেলা বিশেষ শাখার গোপন অনুসন্ধানে উঠে আসে ত্রাণ বিতরণে অনিয়মের এ চিত্র। এ ছাড়া ওই তালিকাভুক্ত দুস্থদের ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে মর্মে তাদের স্বাক্ষর ও টিপসহি দেখানো হয়েছে তা সঠিক নয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seven + 7 =

আরো বিভন্ন বিভাগের নিউজ