• বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১০:২৫ পূর্বাহ্ন
Channel Cox add

প্রবাসীর জায়গায় দেয়াল নির্মাণে চাঁদা দাবি প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা

সংবাদদাতা
আপডেট : মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর, ২০২০

চ্যানেল কক্স ডট কম :

গত ১৮ অক্টোবর দৈনিক কক্সবাজার, দৈনিক সমুদ্র কন্ঠ, দৈনিক কক্সবাজার প্রতিদিন,পত্রিকায় প্রকাশিত প্রবাসী জায়গায় দেয়াল নির্মাণে চাঁদা দাবি শিরোনামে শীর্ষক সংবাদটি আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে।
আমি ঝিলংজা চাঁন্দের পাড়া ৫ নাম্বার ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার জাকের হোছাইন, আমি পল্লীবিদ্যুৎ কক্সবাজারের প্রথম শ্রেনীর ঠিকাদার।
উক্ত পেশায় জড়িত থেকে সততার সাথে পরিবার পরিজন নিয়ে জীবন নির্বাহ করে যাচ্ছি। এবং স্থানীয়ভাবে বিভিন্ন ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান , মসজিদ কমিটিতে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে আসছি।
তা সহ্য করতে না পেরে একটি কুচক্রী মহল টাউট বাটপার তাদের চরিত্র ধরে রাখার জন্য ষড়যন্ত্রমূলকভাবে আমি ও আমার পরিবারের বিরুদ্ধে নানা ধরনের মিথ্যাচার, হয়রানি মূলক মিথ্যা মামলা দিয়ে যাচ্ছে এবং সাংবাদিক ভাইদের মিথ্যা তথ্য দিয়ে সংবাদ প্রকাশসহ বিভিন্ন ধরনের ষড়যন্ত্র মূলক অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে।

মূলত প্রবাসী মঈনুদ্দিনের ক্রয় কৃত জমিতে সীমানা প্রাচীর দেওয়ার সময় স্থানীয় সচেতন মহল ও স্থানীয় ওয়ার্ড প্রতিনিধি প্রবাসী মাইনুদ্দিনগংকে অনুরোধ করেছিলেন জনসাধারণের চলাচলের একমাত্র রাস্তা দখল করে সীমানা প্রাচীর তৈরি করলে সাধারণ জনগণের যাতায়াতের ব্যাঘাত ঘটবে।
প্রবাসী মাইনুদ্দিনের আত্মীয়-স্বজনরা স্থানীয় মেম্বার ও সচেতন মহলের কারো কথা কর্ণপাত না করে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ কাজ অব্যাহত রাখে।
সর্বশেষ এলাকাবাসী রাস্তা দখল না করার জন্য বোঝাতে গেলে খুচরা ইয়াবা কারবারি আমানুল হক ও তার বোন জামাই রোহিঙ্গা ইসমাইল, ফরিদুল আলম , নুসরাত শারমিন সুমি, সেলিনা আক্তার নুর তানজিন, তাহসিন সহ অজ্ঞাত নামা ৬/৭ জন দুর্বৃত্তরা হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত করেছে আমার ছোট ভাই কামাল হোসেন, আনোয়ার হোসেন, ও আমার পুত্র সাখাওয়াত হোসেনকে মারাত্মক জখম করেছে।
তারা দুষ্ট প্রকৃতির লোক সন্ত্রাসী ইয়াবা ব্যবসায়ী রোহিঙ্গা ইসমাইল ,আমানুল হক ও জিয়াউল হক প্রতিনিয়ত ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। চট্টগ্রামে তার বোনের বাসা থেকে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ইয়াবা প্রচার করে। কয়েক মাস আগে চট্টগ্রামে ইয়াবা নিয়ে আটক হয়েছিল জিয়াউল হক।
এলাকায় তাদের দাপটে সাধারণ মানুষ জিম্মি।
গত ১৬ সেপ্টেম্বর কক্সবাজার সদর মডেল থানায় আমার ছোট ভাই আনোয়ার হুসাইন বাদী হয়ে,
ফরিদুল আলমের পুত্র আমানুল হক, কালুর দোকান এলাকার ফজল আহমদের পুত্র মোহাম্মদ ইসমাইল ,মৃত আবুল খায়ের এর পুত্র ফরিদুল আলম, মোহাম্মদ মঈন উদ্দিনের স্ত্রী নুশরাত শারমিন সুমি, মোহাম্মদ ইসমাইল এর স্ত্রী সেলিনা আক্তারকে আসামি করে একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
মূলত এলাকার চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ী রোহিঙ্গা ইসমাইলের ইন্দনে এই ঘটনা সংঘটিত হয়েছে হচ্ছে।
জোরপূর্বক জনগণের রাস্তা দখলে নিতে উল্টো আমার বয়স্ক মা এবং পরিবারের উপর বিভিন্নভাবে হামলা চালায়। এ ঘটনা ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে উল্টো চাঁদাবাজি,ও নারী নির্যাতনের মিথ্যা কল্পকাহিনী সাজিয়ে ভূয়া মামলা দায়ের করেন আমি ও আমার পরিবারের বিরুদ্ধে।

সংবাদে আরো উল্লেখ করেছেন
আমাদের অত্যাচারে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ ও মিস্ত্রির মোবাইল কেড়ে নিয়েছি এই বিষয়টি সম্পূর্ণ মিথ্যা বানোয়াট, ভিত্তিহীন, উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হাস্যকর।
মিথ্যা প্রচার করা তাদের স্বভাব।

উক্ত মিথ্যা সংবাদে সাংবাদিক, কক্সবাজারের প্রশাসন ও সচেতন মহলকে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য অনুরোধ করছি।
প্রতিবাদকারী
মোহাম্মদ জাকের হোছাইন
সাবেক মেম্বার
ঝিলংজা ইউনিয়ন পরিষদ।
মোবাইল নং ০১৭১১১৯৩২৪৩।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

9 − two =

আরো বিভন্ন বিভাগের নিউজ