আমরা ঝুঁকি নিতে চায় না, ইসলামপুর বাসী

Channel Cox.ComChannel Cox.Com
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৪:৪৪ PM, ১৭ এপ্রিল ২০২০

ইমাম খাইর, কক্সবাজার:
করোনা ভাইরাসের কারণে দেশ যখন দিনদিন ঝুঁকির দিকে যাচ্ছে; মানুষের মাঝে বাড়ছে আতংক, ঠিক তখই খোলে দেয়া হয়েছে কক্সবাজার সদরের ইসলামপুরের লবণমিলগুলো। লোড আনলোডসহ মিলকেন্দ্রিক নানা কাজে যাচ্ছে শতশত লবণশ্রমিক। আর লবণ পরিবহণে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জের মতো করোনা ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা থেকে আসছে ট্রাক। যেখানে চালক, হেলপারসহ সবার করোনার লক্ষণ থাকার সম্ভাবনা। এই অবস্থা চলতে থাকলে করোনামুক্ত কক্সবাজার জেলায় যে কোন সময় ছড়িয়ে পড়তে পারে নিয়ন্ত্রণহীন এই ভাইরাস। গরীব, অসহায় এলাকার মানুষগুলো এই ভাইরাসে আক্রান্ত হলে বাঁচানোর কোন সুযোগ থাকবে না। মানুষ বাঁচলে দেশ বাঁচবে। সময় থাকতে ব্যবস্থা নিতে হবে।-এমনটি জানিয়েছে ইসলামপুরের সর্বস্তরের মানুষ।

গত কয়েকদিন ধরে বেশ লেখালেলেখি ও বিভিন্ন অনলাইন নিউজ পোর্টালে প্রতিবেদন হয়েছে। তবু জনপদে ঢুকে পড়ছে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ থেকে আসা লবণবাহী ট্রাকসমূহ। তাতে আতংক আরো বাড়ছে।

অবশেষে নিজেদের নিরাপত্তার স্বার্থে প্রতিবাদে মাঠে নেমেছে ইসলামপুরের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোকজন।

শুক্রবার (১৭ এপ্রিল) সকাল থেকে ইসলামপুরের নাপিতখালী বটতলী স্টেশনজুড়ে বিক্ষোভ, মানববন্ধনে সবার দাবী ছিল একটাই -‘ট্রাক চাই না, বাঁচতে চাই।’ ‘আপাততঃ ঢাকা-নারায়ণগঞ্জের ট্রাক নয়, লবণমিল বন্ধ রাখলে ভাল হয়।’ ‘আমরা সবাই বাঁচতে চাই, ইসলামপুর লকডাউন চাই।’
তবে, নাপিতখালী বটতলীতে বিসিকের পক্ষ থেকে চালক, হেলপারদের জীবানুমুক্তকরণের প্রক্রিয়া আব্যাহত থাকলেও তাতে যথেষ্ট নয় বলে জানিয়েছে স্থানীয় বাসিন্দারা।

শুক্রবারের বিক্ষোভে স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন -ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড সদস্য আওয়ামী লীগ নেতা আবদুশ শুক্কুর, বটতলী ট্রাক টার্মিনালের পরিচালক আনোয়ারুল আজম খোকন, চ্যানেল কক্সের সম্পাদক মনছুর আলম, ইসলামপুর ব্লাড ডোনার’স এন্ড জনকল্যাণ সোসাইটির সভাপতি নুরুল আজিম মিন্টু, সহসভাপতি ইউছুফ নবী, সিনিয়র সহসভাপতি হারুনুর রশিদ, সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হুসেন সাঈদী, সহসভাপতি নুরুল হুদা, ছাত্রলীগ নেতা ছৈয়দ মোহাম্মদ তামিম, শিক্ষক এস কে জাকের হোসেন, শামসুর রহমান শামীম, সোহেল, শফিউল আলম, তাফসীর।

আপনার মতামত লিখুন :