ত্রিদেশীয় সিরিজ: ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৮ উইকেটে হারাল বাংলাদেশ

Channel Cox.ComChannel Cox.Com
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১১:২৭ PM, ০৮ মে ২০১৯

ত্রিদেশীয় সিরিজে বাংলাদেশের কাছে ৮ উইকেটে হারল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ডাবলিনে ক্যারিবীয়দের দেয়া ২৬২ রানের টার্গেট টপকাতে টাইগারদের খরচ হয়েছে মাত্র ২ উইকেট। সেঞ্চুরি করে ম্যাচ সেরা ওয়েস্ট ইন্ডিজ ওপেনার শাই হোপ।

স্বাগতিক আয়ারল্যান্ডকে প্রথম ম্যাচে তুলোধুনো করেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ব্যাটিংলাইনই ওদের মূল অস্ত্র। ডাবলিনে বাংলাদেশের বিপক্ষেও প্রমান পাওয়া গেল সেটার। টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত ক্যারিবিয়ানদের। সুনিল অ্যামব্রিসকে সাথে নিয়ে শাই হোপের ৮৯ রানের ওপেনিং পার্টনারশিপ।

টাইগার শিবিরে হতাশা জেকে বসার আগেই মেহেদী মিরাজের ব্রেক থ্রু। মাহামুদউল্লার দুর্দান্ত ক্যাচে ৩৮ রানে কাটা পড়লেন আম্ব্রিস। তারপর শাই হোপের সাথে বোঝাপড়া শুরুর আগেই ড্যারেন ব্রাভোকে ফিরিয়েছেন সাকিব আল হাসান।

তারপর আবারো বাংলাদেশের অপেক্ষার গল্প। রোস্টন চেজের সাথে শাই হোপের ১১৫ রানের পার্টনারশিপ। এবারে ক্যাপ্টেন মাশরাফি দেখালেন পথ, ৫১ রানে তুলে নেন রোস্টন চেজকে। ম্যাশের বলে আউট হওয়ার আগে হোপ তুলে নিয়েছেন নিজের টানা দুই নম্বর ওডিআই সেঞ্চুরি।

তারপরেই ধ্বস নামে ক্যারিবিয়ান ব্যাটিং লাইনে। স্কোরবোর্ডে ১২ রান যোগ করতেই মিডিল অর্ডারের ৩ ব্যাটসম্যানকে হারায় ওরা। সাকিবের দুর্দান্ত ক্যাচের সুবাদে ১১ রানে জনাথন কার্টারকে আর ১৯ রানে অ্যাশলে নার্সকে মুস্তাফিজ তুলে নিলে ২৬১র বেশি এগোতে পারেনি ক্যারিবিয়ানরা।

জবাব দিতে নেমে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাড়ে সর্বনাশ করেছে তামিম-সৌম্যর ওপেনিং পার্টনারশিপ। পেস কিংবা স্পিন, কোনো অস্ত্রেই থামানো যাচ্ছিল না দুই টাইগারকে। যদিও দুজনই সাজঘরে ফিরেছেন সেঞ্চুরির অল্প দূরে থাকতেই।

৬৯ বলে ৭৩ করা সৌম্য সরকারকে ফিরিয়ে ১৪৪ রানের পার্টনারশিপ ভাঙেন শ্যানন গ্যাব্রিয়েল। একটা ছক্কা আর ৯ চারে নিজের ইনিংসটা সাজিয়েছেন সৌম্য।ক্যাপ্টেন জেসন হোল্ডারের দুরন্ত ক্যাচে তামিমকে ৮০ রানে ফিরিয়েছেন শ্যানন গ্যাব্রিয়েল। শুরু থেকেই হিসেবি ব্যাটিং করা তামিম হাকিয়েছেন ৭ বাউন্ডারি।

তামিম-সৌম্য ফিরলেও ক্যারিবীয়রা টলাতে পারেনি টাইগার ব্যাটিং। মুশফিককে সাথে নিয়ে বাকি কাজটা হেসে খেলেই করেছেন সাকিব। ওদের জুটি থেকে স্কোরবোর্ডে যোগ হয়েছে ৬৮ রান। ভাইস-ক্যাপ্টেন তুলে নিয়েছেন ক্যারিয়ারের ৮ নম্বর হাফসেঞ্চুরিও। নটআউট ছিলেন ৬১ রানে। তার সঙ্গী দুটো কোরে ছক্কা আর চার হাকানো মুশফিক অপরাজিত থাকেন ৩২ রানে।

আপনার মতামত লিখুন :